সিডনী শনিবার, ৬ই মার্চ ২০২১, ২২শে ফাল্গুন ১৪২৭


নিউজিল্যান্ডের পামারস্টোন নর্থ শহরে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত


প্রকাশিত:
২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৩:৩৭

আপডেট:
৬ মার্চ ২০২১ ১৬:২২

 

যথাযোগ্য মর্যাদায় নিউজিল্যান্ডের পামারস্টোন নর্থ শহরে পালিত হলো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। মানাওয়াতু বাঙালি সোসাইটি আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পামারস্টোন নর্থ সিটি কাউন্সিলের মেয়র গ্রান্ট স্মিথ (Grant Smith)। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মানাওয়াতু বাঙালি সোসাইটির সভাপতি, মেসি ইউনিভার্সিটির প্রফেসর এমেরিটাস শ্রীকান্ত চ্যাটার্জি।

মানাওয়াতু বাঙালি সোসাইটি হলো নিউজিল্যান্ডের পামারস্টোন নর্থ শহরে বসবাসকারী দুই বাংলার (বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ) বাংলা ভাষাভাষী মানুষের প্রাণের সংগঠন। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মানাওয়াতু বাঙালি সোসাইটির সভাপতি শ্রীকান্ত চ্যাটার্জি। তিনি ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের কথা গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন। এর পর পরই ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস ও তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন মেসি ইউনিভার্সিটির পিএইচডি গবেষক মু: মাহবুবুর রহমান। তিনি তার বক্তব্যে ১৯৪৭ থেকে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ভাষা আন্দোলনের ভূমিকা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।  

রক্তিম বড়ুয়া ও তনিমা হোসেইনের সাবলীল উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে পামারস্টোন নর্থ সিটি কাউন্সিলের মেয়র গ্রান্ট স্মিথ বলেন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস এখন আর শুধু বাংলা ভাষাভাষী মানুষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কোনো দিন নয় এটি পুরো বিশ্বের সব মানুষের ভাষা রক্ষার দিন। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য টাঙ্গি উথিকেরি (Tangi Utikere), সিটি কাউন্সিলর লে ফেন্ডলি (Lew Findlaey) ও লরনা জনসন (Lorna Johnson)।

বক্তৃতা প্রদানের ফাঁকে ফাঁকে চলছিল আবৃত্তি, গান ও নৃত্য পরিবেশনা। শুরুর দিকে বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের খোকার সাধ (আমি হব সকাল বেলার পাখি) কবিতা আবৃত্তি করে শোনায় ছোট্ট বন্ধু তামজীদ হাসান। এরপর নেপালি লোক সংগীতের সুরে নৃত্য পরিবেশন করে রিধানস ছেত্রী (Hridaansh Chetri)। এরপর ছিল ‘ওরা আমার মুখের কথা কাইরা নিতে চায়’- সেই ঐতিহাসিক ভাষা গানের তালে তালে নৃত্য পরিবেশনা আর নৃত্য পরিবেশন করে আজমাইন ইফরিত।

‘আমি বাংলায় গান গাই, আমি বাংলার গান গাই, আমি, আমার আমিকে চিরদিন এই বাংলায় খুঁজে পাই’- কালজয়ী এ গানটি গেয়ে শুনান মেসি ইউনিভার্সিটির পিএইচডি গবেষক মুক্তি বড়ুয়া। আরিশা আজমী ও শ্যামা সিমোনের লোক সংগীতের তালে তালে নৃত্য পরিবেশনা উপস্থিত সবাইকে মুগ্ধ করে।  

অনুষ্ঠানে ছিলো ভিন্ন ভিন্ন ভাষায় বক্তৃতা ও কবিতা আবৃত্তি। কোরিয়ান ভাষায় বক্তব্য প্রদান করে ইশমাম বিশ্বাস ও ফ্রেঞ্চ ভাষায় বক্তব্য প্রদান করেন স্টিভ কম্ব (Steve Coomb)।  হিন্দিতে কবিতা আবৃত্তি করেন গৌরভ সেনগুপ্ত। পাঞ্জাবি ভাষায় কবিতা আবৃত্তি করে শোনান গোপা ও দীপক বড়ুয়া। আর জাপানি ভাষার হাইকু কবিতা নিয়ে আলোচনা করেন মধুমিতা ভট্টাচার্য।

মানব সভ্যতার বিকাশে ভাষার ভূমিকা নিয়ে আলোচনা করেন ডাঃ শামসুল আরেফিন। অনুষ্ঠানে বক্তৃতা, গান, আবৃত্তি, নৃত্যের মাধ্যমে সবাই বাংলা ভাষার ঐতিহ্য, তাৎপর্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। ‘মোদের গরব মোদের আশা, আ-মরি বাংলা ভাষা’- যৌথ কণ্ঠে এ গানটি পরিবেশনের মাধ্যমে শেষ হয় বাংলাদেশ থেকে হাজার হাজার মাইল দূরে অবস্থিত নিউজিল্যান্ডের ছোট শহর পামারস্টোন নর্থ এ বসবাসকারী বাংলা ভাষাভাষীদের ভাষা দিবসের আয়োজন।  

 

মু: মাহবুবুর রহমান 
নিউজিল্যান্ডের মেসি ইউনিভার্সিটির পিএইচডি গবেষক

 

এই লেখকের অন্যান্য লেখা



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top