সিডনী বুধবার, ২৭শে মে ২০২০, ১৪ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭


করোনা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে, লকডাউন শিথিল হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ায়


প্রকাশিত:
৪ মে ২০২০ ১৩:৪৮

আপডেট:
২৭ মে ২০২০ ১২:২৩

ফাইল ছবি

 

প্রভাত ফেরী: লকডাউন শিথিল করতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া। নির্ধারিত সময়ের আগেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে লকডাউন শিথিলের ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। আগামী শুক্রবার থেকেই লকডাউনে জারি করা কড়াকড়ি শিথিল করা হবে বলে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন। মরিসন জানিয়েছেন, খুব শিঘ্রই এ বিষয়ে আলোচনা করতে মন্ত্রিসভার বৈঠক হবে।

করোনার বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ান সরকারের এই কঠোর ও সুপরিকল্পিত উদ্যোগের জন্যই এখন এই প্রশান্ত মহাসাগর তীরের দেশটি মহামারিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছে দ্রুত। পার্থ, ক্যানবেরা ও এডেলাইড রাজ্যে গত এক সপ্তাহে আক্রান্তের সংখ্যা শূন্য। কুইন্সল্যান্ডে গত দুই মাসে কেউ আক্রান্ত হননি। অন্যান্য রাজ্যেও কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের ও মৃতের সংখ্যা ২০ শতাংশ কমে এসেছে। এমন পরিস্থিতিতে সরকার লকডাউন শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন এক সাংবাদিক সম্মেলনে কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, পর্যায়ক্রমে সমুদ্র সৈকতগুলো খুলে দেওয়া হবে শুধুমাত্র ব্যায়াম, সাঁতার ও সার্ফিংয়ের জন্য। আরও জানিয়েছেন, ইলেকটিভ সার্জারি ও ডেন্টাল হাসপাতালগুলোও আগের মতো স্বাভাবিকভাবে চলবে।

মরিসন বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকরা সরকারের নির্দেশনা যথাযথভাবে পালন করেছে। তারা ভালো অবস্থান অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। আমাদের অর্থনীতি পুনরায় চালু করতে হবে। আমাদের সমাজকে আবারও গতিশীল করে তুলতে হবে। করোনার প্রকোপে ইতোমধ্যেই ভয়াবহ বিপর্যয় মোকাবিলা করতে হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, ইতালি, ফ্রান্স, জার্মানি, যুক্তরাজ্য, রাশিয়ার মতো দেশগুলোকে সেদিক থেকে অনেকটাই সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

দেশটি শুরু থেকেই করোনা ভাইরাসকে গুরুত্ব দিয়েছে। প্রথম থেকেই তারা চীনের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে। এমনকি দেশটিতে প্রথম দিকে বিদেশ ফেরত সব নাগরিককে ১৪ দিনের জন্য বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন, দেশজুড়ে লকডাউন জারি এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা হয়েছে।

এর সুফলও পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া। অনেক দেশই যখন করোনার প্রকোপে হিমশিম খাচ্ছে তখন করোনাকে জয়ের পথে রয়েছে দেশটি। ইতোমধ্যেই পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। ফলে আগামী সপ্তাহ থেকেই লকডাউন শিথিল হচ্ছে। সম্প্রতি দেশটির জনপ্রিয় বেশ কিছু বিচ খুলে দেয়া হয়েছে। দেশজুড়ে ব্যাপকহারে করোনার পরীক্ষা চালাচ্ছে সরকার।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, অস্ট্রেলিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬ হাজার ৭৬৬ এবং মারা গেছেন ৯৩ জন।


বিষয়: করোনা


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top