সিডনী মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল ২০২১, ৩০শে চৈত্র ১৪২৭


স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে বাংলাদেশকে শুভেচ্ছা জানালেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দলীয় নেতা


প্রকাশিত:
২৬ মার্চ ২০২১ ২০:০৭

আপডেট:
১৩ এপ্রিল ২০২১ ০৬:১৬

 

২৬শে মার্চ, বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবসের সুবর্ণ জয়ন্তীতে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি জানান, যে-অল্প কয়েকটি দেশ সর্বপ্রথমে বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বীকৃতি দিয়েছিল, সেগুলোর মধ্যে একটি দেশ হিসেবে অস্ট্রেলিয়া গর্ব অনুভব করছে। ২০২২ সালে অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশের মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। তিনি এই গভীর ও আন্তরিক সম্পর্ক উদযাপনের জন্য আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন ছাড়াও আরও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার ফেডারাল বিরোধী দলীয় নেতা অ্যান্থোনি অ্যালবানিজ সহ কয়েকজন মন্ত্রী ও নেতা। অ্যান্থোনি অ্যালবানিজ তার শুভেচ্ছা বার্তায় বাংলাদেশের জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবর্ষ পূর্তিতে মুজিব বর্ষের কথাও উল্লেখ করেন। অস্ট্রেলীয় সমাজে অবদান রাখার জন্য বাংলাদেশী অস্ট্রেলিয়ানদেরকে তিনি ধন্যবাদ জানান। অস্ট্রেলিয়ান লেবার পার্টির নেতা হিসেবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের ৫০ বর্ষ পূর্তি উপলক্ষে তিনি বাংলাদেশী অস্ট্রেলিয়ান ও বাংলাদেশের জনগণকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন,

“বাংলাদেশের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ান লেবার পার্টির শক্তিশালী সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশের জাতিসংঘে সদস্য হওয়ার ক্ষেত্রে হুইটলাম লেবার সরকার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল।”

“বাংলাদেশে সফরকারী একমাত্র অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী হলেন মিস্টার হুইটলাম। আমি নিশ্চিত যে, তিনি সর্বশেষ হবেন না।”

মিনিস্টার ফর ইমিগ্রেশন, সিটিজেনশিপ, মাইগ্রান্ট সার্ভিসেস অ্যান্ড মাল্টিকালচারাল অ্যাফেয়ার্স অ্যালেক্স হাক তার শুভেচ্ছা বার্তায় বলেন,  বাংলাদেশী সম্প্রদায় অস্ট্রেলিয়ায় দ্রুত-বর্ধনশীল সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে অন্যতম। ৫০,০০০ এরও বেশি বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত লোক অস্ট্রেলিয়াকে নিজের দেশ হিসেবে গ্রহণ করেছেন।

এছাড়াও বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের বর্ষ শুভেচ্ছা জানিয়েছে নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রিমিয়ার গ্ল্যাডিস বেরেজিক্লিয়ান।  তিনি বলেন, “অস্ট্রেলিয়ান বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ব্যক্তিরা আমাদের রাজ্যে, বিশেষত, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে যে অবদান রেখেছেন, সেজন্য প্রিমিয়ার হিসেবে আমি গর্বিত।”

নিউ সাউথ ওয়েলসে বিরোধী দলীয় নেতা এবং শ্যাডো মিনিস্টার ফর মাল্টিকালচারালিজম, লেবার পার্টির জোডি ম্যাকেও বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের ৫০ বর্ষ পূর্তি উপলক্ষে বাণী প্রদান করে বলেন,

১৯৭৪ সালে জাতিসংঘের সদস্য পদ লাভের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সহায়তা করে অস্ট্রেলিয়া এবং ১৯৭৫ সালে লেবার পার্টির সাবেক প্রধানমন্ত্রী গফ হুইটলাম প্রথম এবং একমাত্র অস্ট্রেলিয়ান প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বাংলাদেশ সফর করেন।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top