সিডনী বুধবার, ২১শে অক্টোবর ২০২০, ৬ই কার্তিক ১৪২৭

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি, আগের এলসির বিষয়ে সিদ্ধান্ত আজ


প্রকাশিত:
৯ অক্টোবর ২০২০ ১৭:০১

আপডেট:
২১ অক্টোবর ২০২০ ০৭:১৬

 

প্রভাত ফেরী: অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের সংকট ও মূল্যবৃদ্ধির অজুহাত দেখিয়ে ১৪ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ ঘোষণার আগে খোলা এলসিগুলোর বিষয়ে ভারতের বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে আজ বৃহস্পতিবার (৯ অক্টোবর) সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে ভারতীয় ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশি পেঁয়াজ আমদানিকারকদের জানিয়েছেন। বন্ধের আগে হিলিসহ সারাদেশের বিভিন্ন বন্দর দিয়ে আমদানির জন্য খোলা এলসির পেঁয়াজের পরিমাণ এক লাখ ৩০ হাজার টন বলে ভারতীয় রফতানিকারকরা জানিয়েছেন।

হিলি স্থলবন্দরের পেঁয়াজ আমদানিকারক মোজাম হোসেন বলেন, ভারতীয় রফতানিকারকরা আমাদের জানিয়েছেন যে, সম্প্রতি ভারতের আদালতে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের বিষয়ে করা একটি রিটের ঘটনায় গত ৩০ সেপ্টেম্বর দেশটির বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত বাণিজ্য মহাপরিচালক বিজয় কুমার স্বাক্ষরিত একটি নির্দেশনা প্রদান করেন। সেই নির্দেশনায় বলা হয়েছিল, গত ১৪ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের আগে যে সব এলসি খোলা হয়েছে, তার পরিমাণ নির্ধারণ করতে এবং ট্রানজিশনাল ব্যবস্থার প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে সিন্ধান্ত নিতে রফতানিকারকদের অনুরোধ করা হয়েছে।

একইসঙ্গে পেঁয়াজ রফতানির জন্য সব এলসির কপিগুলো ৭ অক্টোবরের মধ্যে ভারতের আঞ্চলিক বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ে জমা দানের জন্য বলা হয়েছিল। সেই মোতাবেক ভারতীয় রফতানিকারকরা আমদানিকারকদের খোলা পেঁয়াজের এলসিগুলোর কপি বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের আঞ্চলিক শাখায় জমা দেন।

গতকাল (৮ অক্টোবর) ভারতের বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে সেই সব এলসির কপিগুলো কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জমা হয়েছে। আজকে ভারতের দিল্লিতে এ সংক্রান্ত একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে, সেই বৈঠকে সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে কোন কোন এলসির বিপরীতে পেঁয়াজ রফতানি করবেন এবং কী পরিমাণ রফতানি করবেন। সিদ্ধান্ত এলে বোঝা যাবে বন্দর দিয়ে কবে নাগাদ দেশে পেঁয়াজ প্রবেশ করবে।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ সেপ্টেম্বর হঠাৎ করেই ভারত সরকার কোনও কিছু না জানিয়ে পেঁয়াজ রফতানি পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়। এতে করে দেশে প্রবেশের অপেক্ষায় সীমান্তের ওপারে ২৫০টি পেঁয়াজবাহী ট্রাক আটকা পড়ে। একইসঙ্গে ১০ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য আমাদের যে এলসি দেওয়া হয়েছিল তার কার্যক্রমও বন্ধ করে দেয় ভারত।

পাঁচ দিন বন্ধের পর ১৩ সেপ্টেম্বর টেন্ডার হওয়া ১১টি ট্রাকে ২৪৬ টন পেঁয়াজ গত ১৯ সেপ্টেম্বর রফতানি করে ভারত। রফতানিকৃত পেঁয়াজের বেশিরভাগই পচে নষ্ট হওয়ায় অনেক পেঁয়াজ ফেলে দিতে হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বাংলাদেশি আমদানিকারকরা।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top