সিডনী মঙ্গলবার, ২৮শে মে ২০২৪, ১৪ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১


সিডনিতে গাংচিল মিউজিক আয়োজিত বৃহৎ বৈশাখী মেলা


প্রকাশিত:
২৩ এপ্রিল ২০২৪ ১৮:০৮

আপডেট:
২৮ মে ২০২৪ ১০:২৬

 

নাইম আবদুল্লাহঃ গত ২১ এপ্রিল (রবিবার) সিডনির ওয়ালি পার্কে টাবু সঞ্জয়ের সর্বিক পরিচালনায় ড্রিম কী রিয়েলিটির পৃষ্ঠপোষকতায়, ওমেন কাউন্সিল অস্ট্রেলিয়া ও এনারগন অস্ট্রেলিয়ার সহযোগিতায় বাঙ্গালীর প্রাণের বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে নাহিদা ও পলি ফরহাদের সঞ্চালনায় বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সঙ্গীতের পর শ্যামলী দে বৈশাখের গান পরিবেশন করে। কবিতা আবৃতি করেন শহিদুল আলম বাদল। কিশলয় কচিকাঁচা, আগমনী অস্ট্রেলিয়া ও বিএসপিসি বাংলা স্কুলের ছোট্ট সোনামনিরা গানে ও নাচে দর্শকদের মাতিয়ে রাখে।

মেলায় সারাদিন ব্যাপী ছিল মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। নৃত্য পরিবেশন করে আর্শিতা আদ্রিতা, মিশা, অবশোরা, তানাকা, ফারিহা আঞ্জুম, ঋতুপোম প্রমুখ। গান পরিবেশন করেন মারিয়া মুন, নিলুফার ইয়াসমিন, মিঠু স্বপ্ন ও রত্না কর, লাল সবুজ ও কৃষ্টি ব্যান্ড। খণ্ড কথোপকথনে ছিলেন নুসরাত জাহান স্মৃতি ও নাবিলা স্রোতস্বিনী।

মেলায় ২০টির বেশি কাপড়ের দোকান, ১৫টির বেশি বাহারি দেশীয় খাবারের দোকান সহ ছিল বাচ্চাদের বিনোদনের জন্য বিভিন্ন ধরনের রাইডের সুবিধা। মেলায় আসা প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানান, বিদেশের মাটিতে বৈশাখের এমন আয়োজন সত্যিই মুগ্ধকর। আয়োজকরা বিদেশের মাটিতে বাংলার সংস্কৃতিকে ফুটিয়ে তোলার যে উদ্যোগ নিয়েছে তা সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে। এতে প্রবাসে বেড়ে ওঠা বর্তমান প্রজন্ম তাদের শিকড়কে জানতে পারবে।

আয়োজকরা জানান, প্রতি বছর বৈশাখ মাসে আমরা মেলার আয়োজন করে থাকি। আমরা চেষ্টা করি অস্ট্রেলিয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশীদের মাঝে দেশের সংস্কৃতিকে তুলে ধরতে। অষ্ট্রেলিয়া তো বটেই সম্ভবত বিদেশের মাটিতে সবচেয়ে বড় বৈশাখী মেলা এটাই।

সাকিনা আক্তার ও নাহিদার সঞ্চালনায় বৈশাখী মেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে মঞ্চে আসেন অষ্ট্রেলিয়ার সংসদ সদস্য টনি বার্ক, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য মার্ক কোরে, অস্ট্রেলিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশ কনসাল জেনারেল মোঃ সাখাওয়াত হোসেন, সাবেক সংসদ সদস্য ওয়েন্ডি লিন্ডসে ক্যাম্বেল টাউন সিটি কাউন্সিলের ডেপুটি মেয়র ইব্রাহীম খলিল মাসুদ কাউন্সিলর সাজেদা আখতার সানজিদা, কাউন্সিলর রাচেল হারিকা সাবেক কাউন্সিলর মোহাম্মেদ জামান টিটু, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি ডঃ সিরাজুল হক, গামা আবদুল কাদের, ইউনিয়ন প্রতিনিধি রেজওয়ান চৌধুরী প্রমুখ।

আয়োজকরা গাংচিল মিউজিকের ব্যনারে আগামী বছরের ১২ এপ্রিল বৈশাখী মেলার প্রতিশ্রুতি ও বাংলাদেশী কমিউনিটিকে পাশে থাকার আমন্ত্রন জানিয়ে মেলার সমাপ্তি ঘোষণা করেন্।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Developed with by
Top