সিডনী মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল ২০২৪, ১০ই বৈশাখ ১৪৩১


ভারতে সারোগেসি আইনে পরিবর্তন


প্রকাশিত:
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ১৪:৩১

আপডেট:
২৩ এপ্রিল ২০২৪ ২০:১১

 

ভারতে সারোগেসি বা গর্ভদান আইনে পরিবর্তন আনা হয়েছে। নতুন আইনে বলা হয়েছে যে বিবাহিত দম্পতির যদি শারীরিক সমস্যা থাকে, স্ত্রী বা স্বামীর কোনো একজনের জননকোষ ব্যবহার করেই গর্ভদাত্রী মায়ের সাহায্যে সন্তানের জন্ম দেয়া যাবে। সে ক্ষেত্রে সংশোধিত ‘গর্ভদান আইন, ২০২২’ অনুযায়ী জেলা মেডিক্যাল বোর্ডের সনদপত্র লাগবে, যাতে উল্লেখ থাকবে, স্বামী বা স্ত্রীর মধ্যে কোনো একজনের শারীরিক সমস্যা রয়েছে এবং জননকোষ দাতার প্রয়োজন রয়েছে। তবে দু’জনেরই শারীরিক প্রতিবন্ধকতা থাকলে চলবে না। সিঙ্গল মাদার বা একা-মহিলারা (বিধবা বা বিবাহবিচ্ছিন্না) নিজেদের ডিম্বাণু এবং শুক্রাণু-দাতার সাহায্যে গর্ভদান প্রক্রিয়ায় সন্তানের জন্ম দিতে পারবেন। এ ক্ষেত্রেও মহিলাকে নিজের ডিম্বাণু ব্যবহার করতে হবে। ডিম্বাণু-দাতার সাহায্য নেয়া যাবে না।


পুরনো গর্ভদান আইনে দম্পতির দু’জনেরই জননকোষ ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক ছিল। নির্দিষ্ট করে এই বিষয়টি বদল করেছে ভারতের স্বাস্থ্য ও পরিবার উন্নয়ন মন্ত্রণালয়। সুপ্রিম কোর্ট সাম্প্রতিককালে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মহিলাদের থেকে জননকোষ দান নিয়ে আবেদন পায়। তারা জানান, কোনো বিরল যৌন-সমস্যায় ভুগছেন তাঁরা। সেই কারণেই তারা গর্ভধারণ করতে পারছেন না। কিন্তু ডিম্বাণু-দানে অনুমতি না থাকায় গর্ভদান প্রক্রিয়ার সাহায্য নিয়েও মা হতে পারছেন না তারা। এর পরেই আইন সংশোধনের কথা ভাবা শুরু হয়।


গত বছর মার্চ মাসে গর্ভদান প্রক্রিয়ায় জননকোষ দানে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। এর পরেই শীর্ষ আদালতের কাছে একের পর এক আবেদন আসতে শুরু করে। গত বছর ডিসেম্বর মাসে সুপ্রিম কোর্ট পুরনো আইনটির যথার্থতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে। শীর্ষ আদালত জানায়, ‘গর্ভদানের যে আসল লক্ষ্য, তা এই আইনে বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে।’

ভারতে সারোগেসি বা গর্ভদান আইন নিয়ে শুনানি চলাকালীন ১৪টিরও বেশি দম্পতিকে ডিম্বাণু-দাতার সাহায্য নেয়ায় অনুমতি দেয় সুপ্রিম কোর্ট। চলতি বছর জানুয়ারি মাসে সুপ্রিম কোর্ট ভারত সরকারের কাছে প্রশ্ন করে, এত মহিলা ক্ষোভ নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হচ্ছেন, কেন সরকার বিষয়টি নিয়ে ভাবছে না? জবাবে তখনই ভারত সরকারের প্রতিনিধি অ্যাডিশনাল সলিসিটর জেনারেল ঐশ্বর্য ভাটি জানিয়েছিলেন, গর্ভদান আইনে সংশোধন নিয়ে ভাবনাচিন্তা করছে সরকার।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Developed with by
Top