সিডনী শুক্রবার, ১৯শে জুলাই ২০২৪, ৪ঠা শ্রাবণ ১৪৩১


৭৮ বছর বয়সী ট্রাম্প বাইডেনকে বললেন ‘বুড়ো’


প্রকাশিত:
১৬ জুন ২০২৪ ১৪:১৮

আপডেট:
১৯ জুলাই ২০২৪ ২০:৪২


আর মাত্র কয়েক মাস পরেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তবে এবারের নির্বাচনে বয়স একটি মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও রিপাবলিকান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও ডেমোক্র্যাট দলের প্রার্থী জো বাইডেনকে বুড়ো ও দুর্বল বলে আক্রমণ করেছেন।

ট্রাম্প শুক্রবার রাতে তার ৭৮তম জন্মদিনকে ফ্লোরিডায় ভাষণ দেন।


সেখানে আগামী নভেম্বরের নির্বাচনে তার প্রতিপক্ষকে বেসামাল বলে মন্তব্য করেছেন। যদিও জো বাইডেনের চেয়ে তিন বছরের ছোট ট্রাম্প।
ট্রাম্প বলেন, ‘আমাদের দেশ অযোগ্য লোকদের কারণে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।’ তিনি বক্তৃতার বিশাল অংশ জুড়ে বাইডেনকে নিয়ে মজা করেছেন।


তিনি আরো বলেন, ‘সব প্রেসিডেন্টের যোগ্যতা পরীক্ষা করা উচিত।’
গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ফ্লোরিডায় ট্রাম্প তার জন্মদিন জমকালো আয়োজনে উদযাপন করেন। তার পাঠানো আমন্ত্রণপত্রে লেখা হয়, ‘আমেরিকার এযাবৎকালের শ্রেষ্ঠ প্রেসিডেন্টের জন্মদিন উদ্‌যাপনে আমাদের সঙ্গে যোগ দিন।’ আয়োজনে অতিথিদের মার্কিন পতাকার আদলে পোশাক পরে আসতে বলা হয়।


ওড়ানো হয় লাল-নীল বেলুন। ট্রাম্প মঞ্চে উঠে এলে সবাই জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়ে গান গাওয়া শুরু করেন।
এদিকে ট্রাম্পকে ৭৮তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বাইডেন। এক্সে পোস্ট করা এক বার্তায় বাইডেন বলেছেন, ‘শুভ ৭৮তম জন্মদিন, ডোনাল্ড। এক বুড়োর কাছ থেকে আরেক বুড়ো জন্মদিনের শুভেচ্ছা নিন।


বয়স শুধু একটি সংখ্যা।’ একে অন্যকে বুড়ো বলার সুযোগ যেন কিছুতেই হাতছাড়া করতে চান না যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক আর বর্তমান প্রেসিডেন্ট। হোক সেটা নির্বাচনী প্রচারণা করতে গিয়ে কিংবা জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাতে।
বর্তমানে বাইডেন আমেরিকার সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ট্রাম্প এবারের নির্বাচনে জয়ী হলে তিনি হবেন দেশটিতে শপথ নিতে যাওয়া সবচেয়ে বয়স্ক প্রেসিডেন্ট। তবু ট্রাম্পের প্রচার শিবির থেকে প্রায় প্রতিদিন বাইডেনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে হোঁচট খাওয়া বা কথা বলার সময় ভুলে যাওয়ার মতো নানা বিষয় নিয়ে ভিডিও প্রকাশ করা হয়ে থাকে। তাদের দাবি, বাইডেন যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে কার্যকর নন, এসব ভিডিও তারই প্রমাণ। কিন্তু ট্রাম্প শিবিরের এসব ভিডিওর বেশির ভাগ সম্পাদনা করা ও বাস্তবতার সঙ্গে কোনো মিল নেই।

ট্রাম্পের বয়স নিয়েও ইতিমধ্যে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। বাইডেন শিবির থেকেও তার বয়স নিয়ে কথা উঠছে। মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকারবিষয়ক প্রভাষক ম্যাথু ফস্টার বলেন, শারীরিক সক্ষমতার ক্ষেত্রে দুজনের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু পার্থক্য চোখে পড়ে। কারণ বাইডেনের কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে চলতে হয়। কিন্তু ট্রাম্পের ক্ষেত্রে কাজের সময়ের ধরাবাঁধা নিয়ম নেই। তিনি জনসমক্ষে বেশি থাকেন। যখন সমর্থকদের সামনে ভাষণ দেন তখন দীর্ঘক্ষণ, অসংলগ্ন অনেক আবেগনির্ভর কথাবার্তা বলেন ট্রাম্প।

এ ছাড়া ট্রাম্প মিডিয়ায় নিজের একটি তরুণ ইমেজ তৈরিতে যথেষ্ট তৎপর। তিনি নিজেকে তরুণ দেখাতে অতিমাত্রায় কসমেটিকস এবং হেয়ার স্প্রে ব্যবহার করছেন। এর ফলে দূর থেকে তাকে অধিকতর তরুণ দেখায় বলে অনেকে মনে করছেন।

আগামী ৫ নভেম্বর মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে যিনি জয়ী হবেন, তিনিই হবেন সবচেয়ে বয়স্ক মার্কিন প্রেসিডেন্ট। কারণ ট্রাম্প ও বাইডেন দুজনের চেয়ে বেশি বয়সে আর কেউ মার্কিন প্রেসিডেন্ট হননি।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Developed with by
Top