সিডনী মঙ্গলবার, ২৬শে জানুয়ারী ২০২১, ১৩ই মাঘ ১৪২৭


মেসিকে ছাড়াই শেষ ষোলোতে বার্সা, নেইমারের গোলে পিএসজির জয়


প্রকাশিত:
২৫ নভেম্বর ২০২০ ১৭:০৪

আপডেট:
২৬ জানুয়ারী ২০২১ ০৯:০৪

 

প্রভাত ফেরী: বার্সেলোনা ও জুভেন্টাসের নকআউট নিশ্চিত করতে প্রয়োজন ছিল একটি জয়। সেই সুযোগ হাতছাড়া করেনি কেউ। চ্যাম্পিয়নস লিগে ডায়নামো কিয়েভকে ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত করে শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে বার্সেলোনা। অপর দিকে জুভেন্টাস শেষ মুহূর্তের গোলে ফেরেঙ্কভারোসকে হারিয়েছে ২-১ গোলে।

লিওনেল মেসি না থাকায় ম্যাচের প্রথমার্ধে তার অভাবটা টের পাওয়া যাচ্ছিল। বল দখলে এগিয়ে থাকলেও ভালো সুযোগ তৈরি করতে পারছিল না কাতালানরা। দ্বিতীয়ার্ধে আসে কাঙ্ক্ষিত সেই সুযোগ। ৫২ মিনিটে মার্টিন ব্র্যাথওয়েটের বাড়ানো বলে লক্ষ্যভেদ করেছেন সার্জিনো ডেস্ট। অবশ্য এই গোল করে ইতিহাসও গড়েছেন তিনি। বার্সেলোনার হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কেউ গোল করেছে  প্রথমবার। এক মিনিট বাদে ব্যবধান বাড়িয়েছেন ব্র্যাথওয়েট।

তৃতীয় গোলটিও আসে ব্র্যাথওয়েটের সৌজন্যে। ৭০ মিনিটে তাকে ফাউল করার সুবাদে পেনাল্টি পায় বার্সা। স্পট কিক থেকে বার্সার জয় সুনিশ্চিত করতে কোনও ভুল করেননি ব্র্যাথওয়েট। বদলি হয়ে ডায়নামো কিয়েভের আরও সর্বনাশ করেছেন আন্তোয়ান গ্রিয়েজমান। শেষ দিকে যোগ করা সময়ে গোল করে স্কোর লাইন করেছেন ৪-০। এই জয়ে টানা ১৭বারের মতো শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে বার্সা। একইভাবে শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছে তাদের ‘জি’ গ্রুপ সঙ্গী জুভেন্টাসও। ফেরেঙ্কভারোসকে হারিয়েছে ২-১ গোলে। এই জয়ের পর ‘জি’ গ্রুপে ৪ ম্যাচে জুভেন্টাসের পয়েন্ট ৯। সমান ম্যাচে বার্সার সংগ্রহ ১২।

চ্যাম্পিয়নস লিগে গোলখরা কাটিয়েছেন নেইমার। চ্যাম্পিয়নস লিগে নকআউটের আশা বাঁচিয়ে রাখতে জয় প্রয়োজন ছিল প্যারিস সেন্ত জার্মেইর (পিএসজি)। লিপজিগের বিপক্ষে ১-০ গোলের জয়ে নকআউটের সম্ভাবনা টিকে থাকলো গতবারের রানার্স আপদের। সর্বশেষ তিন ম্যাচে পিএসজির একটি জয়ের বিপরীতে হার ছিল দু’টিতে। তার ওপর প্রথম লেগে এই লিপজিগের কাছে পেতে হয়েছে হারের স্বাদ। গতকাল অবশ্য সেই হারের প্রতিশোধ নেওয়ার সঙ্গে পয়েন্ট টেবিলে লিপজিগকে টপকে দুইয়েও উঠে এসেছে পিএসজি। ৪ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ৬।

তিনে নেমে যাওয়া লিপজিগেরও পয়েন্ট সমান। তবে গোল ব্যবধানে পিছিয়ে তারা। এই জয়ের সঙ্গে নিজের গোল খরাও কাটিয়েছেন নেইমার। ১১ মিনিটে আনহেল ডি মারিয়া ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি পায় পিএসজি। একমাত্র এই গোলটি করেছেন নেইমার। এর মধ্যে দিয়ে টুর্নামেন্টে ষষ্ঠ ম্যাচে এসে গোলের দেখা পেলেন এই ব্রাজিলিয়ান।


বিষয়:


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top