সিডনী শনিবার, ২৪শে জুলাই ২০২১, ৯ই শ্রাবণ ১৪২৮

মানব পাচার ও আধুনিক দাস প্রথার বলয় : অনজন কুমার রায়


প্রকাশিত:
২৬ জুন ২০২১ ১৩:৫১

আপডেট:
২৬ জুন ২০২১ ১৩:৫৩

 

এক টেবিলে ব্ল্যাক কফি, অন্যটিতে কোল্ড ড্রিংকস। চা নিয়ে হাত দুটি ব্যালেন্স করে রেস্টুরেন্টে পুরো দস্তুর মতো কাজ করছে ছটকো। পয়সা পায় না, তবে দু'বেলা খেতে পারে এতেই তৃপ্তির ঢেকুর তুলে। মায়ের হাতে কবে লুচি পায়েস খেয়েছিল মনে নেই ছটকোর। তারপরও মনের মাঝে কোন দু:খ নেই টিভিতে সিনেমা দেখতে পারে বলে!
ছটকোর জীবনীতে ক্রীতদাসের ছবি ফুটে উঠে। নিখুঁত করে বলতে গেলে 'আধুনিক ক্রীতদাস' বা Modern Slave. তবে সব ছটকোই যে ক্রীতদাস তা কিন্তু নয়। 'ফোর্সড লেবার' বা জবরদস্তিমূলকভাবে কাজ করানোর সঙ্গে আধুনিক ক্রীতদাসের সম্পর্ক অতি নিবিড়। 'গ্লোবাল স্লেভারি ইনডেক্স' সূচক নির্ভর প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা কেভিন ব্যালেস 'আধুনিক দাসপ্রথা'র ধারণাটি বিশ্ববাসীর সামনে নিয়ে আসেন।
বিশেষজ্ঞদের মতে, কোন কর্মী যদি নির্ভয়ে তার অপছন্দের কাজকে 'না' বলার পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারে তবেই প্রকৃত স্বাধীনতা অর্জন করতে পারে। কর্মক্ষেত্রে প্রকৃত স্বাধীনতা অর্জন করতে না পারলে ক্রীতদাস হিসেবেই জীবনকে বেছে নিতে হয়। অদ্ভুত ব্যাপার হলো, অনেকেই ছোটবেলা থেকে কর্মক্ষেত্রে জোর জবর দস্তিমূলকভাবে বেড়ে উঠায় ব্যক্তি স্বাধীনতা কি তা ভুলে যায়।
বেগার শ্রম, মানব পাচার, বলপূর্বক শ্রমে নিয়োগ, জোর করে বিয়ে দেয়া আধুনিক ক্রীতদাস হিসেবে বিবেচ্য। মানব পাচার হলো দাসত্বের আধুনিকতম পর্যায় যা বাধ্যবাধক শোষণের জন্য মানুষের অবৈধ বাণিজ্য জড়িত। মুলত: সমাজের অতি দরিদ্র্য, নিরক্ষর মানুষরাই মানব পাচারকারী টার্গেটে পরিণত হয়। বিদেশ পাড়ি দেবার কথা বলে মানুষগুলোর মাঝে আশা জাগায়। স্বপ্ন দেখতে শুরু করে দু'চোখ ভরে; অবারিত ধারায় জীবন চলতে শুরু করে সরলমনা মানুষগুলোর প্রথম প্রহরেই। কিন্তু প্রতারণার ফাঁদে পড়ে দুর্বিষহ জীবন নেমে আসে। নারীদের অবস্থা আরো ভয়াবহ রূপ ধারণ করে। অনেক ক্ষেত্রে তাদেরকে জোরপূর্বক পতিতা বৃত্তি গ্রহণ করতে বাধ্য করা হয় কিংবা গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতে হয়। সেখান থেকে পালিয়ে বাঁচা আরো কঠিন হয়ে পড়ে। বিশেষ করে ইউরোপ কিংবা আমেরিকায় অবৈধ অভিবাসী হিসেবে বসবাস করায় দেশে ফেরত পাঠানোর ভয়ে অনেকটা চোখ বুজে নির্যাতন সহ্য করে। 'রুটস: দ্যা সাগা অব অ্যান আমেরিকান ফ্যামিলি' উপন্যাসে দাসের উপর নির্যাতনের সেরূপ করুণ চিত্র আমরা খুঁজে পাই। লেখক অ্যালেক্স হ্যালি দাসের নির্মম কাহিনী অত্যন্ত সুনিপুণ ভাবে তুলে ধরেছেন। উপন্যাসে কোন্টাকিন্ট বার বার চেষ্টা করেও দাসত্বের বলয় থেকে নিজেকে মুক্তি দিতে পারেনি। বরং দাসত্ব থেকে মুক্তি পাবার বদলে মালিকের কুঠারের আঘাতে পায়ের পাতার অর্ধেকটুকু হারিয়ে চিরতরে 'মুক্তি' হারায় কোন্টা!
পাচারকৃত ভূক্তভোগিদের বেশি সংখ্যক নিরক্ষর থাকায় দেশগুলোর আইন-কানুন সম্পর্কে ধারণা থাকে না। ফলে নির্যাতনের মতো অবস্থা থেকে উদ্ধার পেতে কোন আইনি প্রক্রিয়ায় এগোতে পারে না। শিশুদের ক্ষেত্রে আরো ভয়ানক বার্তা প্রকাশ পায়। তাদেরকে জোরপূর্বক মাছ ধরার কাজে নিয়োজিত রাখে। এমনকি, কোন কোন শিশুকে নেতিবাচক মতবাদ বা আদর্শে উদ্বুদ্ধ করা হয়। ফলে এক অন্ধকার অমানিশায় ঘুরপাক খায় মানুষগুলোর ভাগ্যের চাকা। বহু প্রতীক্ষিত স্বপ্নের স্ফূলিঙ্গ ভাসিয়ে দেয় উত্তাল সাগরে।
ইউনাইটেড নেসনস অফিস অন ড্রাগস অ্যান্ড ক্রাইম(ইউএনওডিসি)- এর তথ্যমতে, প্রতিবছর আন্তর্জাতিক সীমান্তে প্রায় ৮ লক্ষ লোক পাচার হয়। এর মধ্যে ৮০ শতাংশ নারী বা মেয়ে এবং ৫০ শতাংশ নাবালিকা। জাতিসংঘের এক তথ্যমতে, এখনও মানব পাচার বিশ্বের সবচেয়ে বড় এবং লাভজনক পেশার একটি। মানব পাচারকারীরা ভূয়া বিজ্ঞাপন দিয়ে ভূক্তভোগিদের আকৃষ্ট করে। বিশেষ করে নারীদের আকর্ষণীয় বেতনে চাকরি দেবার প্রতিশ্রুতি মানব পাচারকারীদের একটি অপকৌশল মাত্র। সে প্রতিশ্রুতির ফাঁদে ফেলে নারীদের আকৃষ্ট করে পাচারকারীরা তাদের কূট কৌশলে সফল হয়। উদাহরণস্বরূপ, কম্বোডিয়ার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারী ও শিশু থাইল্যান্ড এবং মালয়েশিয়ায় পাচার করা হয়। দেশগুলোতে নারী পাচারের ট্রানজিট হিসেবেও কম্বোডিয়াকে ব্যবহার করা হয়। যাদের প্রধান উদ্দেশ্য শিশুশ্রম ও বাণিজ্যিক যৌন শোষণ।
আমাদের দেশ থেকে যেসব মানব পাচার হয়ে থাকে তার উল্লেখযোগ্য সংখ্যকই নারী। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের তথ্য অনুযায়ী, শুধু ২০২০ সালেই অবৈধভাবে সীমান্ত পাড়ি দেবার সময় ৩০৩ নারীকে উদ্ধার করা হয়। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক তথ্য মতে, ২০১২ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত ৯ বছরে নারী পাচারের শিকার এমন মামলার সংখ্যা ১ হাজার ৭৯১ টি। মামলার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে যত মানব পাচার হয়েছে তার মধ্যে ২১ শতাংশ নারী। সম্প্রতি ভারতের বেঙ্গালুরোতে বাংলাদেশের এক তরুণীকে নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল হয় যা আমাদের বিবেককে নাড়া দেয়।
তবে আশার কথা হলো,আধুনিক দাসদের মাঝে নারী ও শিশুদের পুনর্বাসনে কিছু প্রতিষ্ঠান কাজ করে যাচ্ছে। এমনকি তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে এ সকল প্রতিষ্ঠানের ভূমিকাও ইতিবাচক। তারপরও আমাদেরকেই সচেতনতার ব্যাপারে এগিয়ে আসতে হবে। তবেই আধুনিক দাসপ্রথার বলয় থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব।

 

অনজন কৃুমার রায় 
ব্যাংক র্কমর্কতা ও লেখক

 

এই লেখকের অন্যান্য লেখা



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top