সিডনী বৃহঃস্পতিবার, ৩০শে জুন ২০২২, ১৬ই আষাঢ় ১৪২৯

থাক ভাই : ময়ূরী মিত্র


প্রকাশিত:
১৪ জুন ২০২২ ০৯:১৯

আপডেট:
৩০ জুন ২০২২ ২১:৫৩

ছবিঃ ময়ূরী মিত্র

 

আমার ছেলেকালের হোলিখেলার কথা বলতে ইচ্ছে হল আজ৷ নিজের উমনোঝুমনো রাঙাআলু শরীরটায় নানা পরতে নানারকম রঙ লাগাতে যে কী আরাম লাগত বসন্তের সে দিবসে ৷ নিজের ওপরই কড়া নজরদারী চালাতাম, যাতে আমার সাদাটে গোলসোল ভুঁড়ির রঙ যেন আবার পায়ে না গড়ায়৷ মানে প্রতি অঙ্গের different colour৷ অঙ্গে প্রত্যঙ্গে বিচিত্র রঙছটা ৷ অন্য লোকে রং দিলে মুখখারাপ করা আর নিজে নিজে নিজেকে অনেকক্ষণ ধরে রঙে ভরানো -এই ছিল আমার ছোটবেলার রঙবাজি বা রঙকলা৷
স্বদেশি আমলের আসামিদের মতো কাকা পিসিদের সারি বেঁধে দাঁড় করিয়ে মিনিট পনেরোর মধ্যে গোটা পঞ্চাশেক রঙ বেলুন মারতাম৷ ফটাফট৷ তবু হাত নিশপিশ৷ মন কেবলই বজ্জাত - রঙিনজল ছিটকে ছিটকে পড়ুক মানবশরীরে৷
পিসি কাকা শেষ তো রঙমাখানো শুরু হল ঝুড়ির আলু পটল বেগুন মায় সস্তায় কেনা ফাগুনের ফুলকপিতেও ৷ যে তরকারির যে রঙ তার ঠিক উল্টো রঙ লাগাতাম৷ ছোট্ট তো তখন৷ খালি মনে হত আসল বস্তুর উল্টো রঙ দিলে তবেই তা ঠিকরোবে বেশি৷ ধরুন আলুর গায়ে গুলাবি লাগালাম তো বেগুনের গায়ে ধরালাম হনুমান৷ মানে বাঁদুরে রঙ আরকি !
পুজোর থালার লতাপাতা ফুল ফল সব রঙ করে ফেলছি রাজমিস্ত্রির মতো৷ বাপরে -কী বিকট সব রঙ ! অদ্ভুত বা বিকটকে বাছতে কোনোদিনও ভুল হয় না আমার৷ খালি মনে হয় --বিকট আছে বলে পৃথিবী এতো সুদৃশ্য৷
এইসব করতে গিয়ে রঙের দুপুরে আগাপাস্তালা নেড়িকুত্তার মার খেতাম মায়ের কাছে৷ দোলের দিন খুব আনন্দ করে মা এই বিজাতীয় মারটি দিতেন আমায়৷ বাথরুমে তখন রঙিন আমির নাচু নাচু খেলু৷ দুপুরের আধফাঁকা চৌবাচ্চায় রঙবাচ্চার হিংলিপিংলি নাচ৷ কলের জলে আমার দেহ জমিনের রাঙা আঁকিবুকি ধুয়ে মুছে যাচ্ছে৷ শরীরও তো তখন খুকি৷ এক অঙ্গের এক রঙ ভিন অঙ্গে মিশে যাচ্ছে যে৷ ডান হাতের বেগুনীতে মিশছে বাঁয়ের সবুজ৷ মনে পড়ে -একবার একই নখে কম সে কম চারটি Solid রঙ লাগাবো বলে দোলের দুমাস আগে থেকে নখ লম্বা করেছিলাম৷ সেবার আমার সেই আদরের বাঘনখ (বাঘের মতোই ডোরাকাটা) জলছবি হয়ে গেল৷ বাথরুম থেকে কেঁদে উঠলাম -ওমা আমি জলে কেচে সাদা হয়ে যাচ্ছিইইই৷ শরীরটা আমার ধোপা কাচা সাদা কাপড় হয়ে গেল যে ৷ মা আমার দিকে দ্যাখো একবার - কোনো রং fix হচ্ছে না মা !
আমার বসন্ত আজ বেসামাল !
হয়ত পালাবে সরল কোকিল !
রঙ তুই থাক ৷
মনের কষ্ট মুছে দে তোর জায়া জননীর ৷



ময়ূরী মিত্র
পশ্চিম বঙ্গ, ভারত

 

এই লেখকের অন্যান্য লেখা



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top