সিডনী রবিবার, ৯ই আগস্ট ২০২০, ২৫শে শ্রাবণ ১৪২৭

টুনটুনি ও তার বন্ধুরা : মশিউর রহমান


প্রকাশিত:
১৫ জুলাই ২০২০ ১৫:৫৮

আপডেট:
১৫ জুলাই ২০২০ ১৬:১২

 

১.

এক কাকের ছানা বাবা-মাকে হারিয়ে একা হয়ে যায়। সবসময় সে কা-কা করে করুণ সুরে ডাকতে থাকে। মনের কথা বলার মতো কাউকে সে কাছে পায় না। একদিন কাকটি ছোট্ট মেয়ে টুনটুনিকে উঠোনে খেলতে দেখে কা-কা করে ডাক দেয়।

টুনটুনি মনে করে, কাকটি তাকে ডাকছে। সে পাচিলের কাছে এগিয়ে যায়। কাকছানাটি উড়ে যায় না। শুধু কা কা করে কয়েকবার ডেকে ওঠে।
সঙ্গে সঙ্গে টুনটুনি দৌড়ে মায়ের কাছে গিয়ে বলে, মা, পাচিলের ওপরে বসা কাকটি আমার সাথে কথা বলেছে।
মা বললেন, কাক তোর সাথে কথা বলেছে? কাক আবার মানুষের কথা বলে নাকি?
টুনটুনি বলল, হ্যাঁ মা, কাক তো কা-কা করে কথা বলে।
মা বললেন, কাক কা-কা করে কথা বলে না, কা-কা করেই ডাকে।
টুনটুনি বলল, কাকটা তার মা-বাবাকে হারিয়ে ফেলেছে।
মা বললেন, এ তো খুব ভয়ের কথা!
টুনটুনি বলে, কাকটি তার মা-বাবা হারানোর কথায় কা-কা করে বলছে।

টুনটুনি এক দৌড়ে উঠোনে আসে। কাকটি তখনো উঠোনে বসে আছে।
টুনটুনি কাকটিকে বলে, তোমার মা কোথায়?
কাকটি আবার করুণ সুরে কা-কা করে ডেকে ওঠে।
টুনটুনি বুঝে নেয়, সে তার মাকে হারিয়ে ফেলেছে।
কাকটিকে দেখে টুনটুনির খুব মায়া হয়। সে বলে, তুমি কেঁদো না, আমি তোমার মাকে এনে দেব।
কাকটি উড়ে চলে যায়।
টুনটুনির খুব মন খারাপ হয়।

২.

টুনটুনি বাগানে লাগানো গোলাপ গাছ দেখছিল। গোলাপ গাছে চারটি লাল ফুল ফুটেছে, আর একটা কুঁড়ি। সে জানে কুঁড়ি থেকেই ফুল ফোটে।
টুনটুনি গোলাপ গাছকে বলে, তোমার বাবা-মা আছে?
গাছ মাথা দুলিয়ে বলে, মা আছে, বাবা নেই?
টুনটুনি বলে, কে তোমার মা?
গাছ মাথা দুলিয়ে বলে, তুমিই তো রোজ আমার গোড়ায় পানি দাও। আমাকে বাঁচিয়ে রাখ। তাহলে তুমিই তো আমার মা।
টুনটুনি মাকে এসে বলে, মা গোলাপ গাছ আমার সাথে কথা বলেছে।
মা বললেন, গাছ আবার কথা বলে নাকি?
টুনটুনি বলে, হ্যাঁ মা, আমার সাথে কথা বলেছে।
মা হাসলেন।
টুনটুনি বলল, আমি রোজ গাছটার গোড়ায় পানি দিই বলে, সে আমাকে বলেছে, আমি নাকি ওর মা!

৩.

পরদিন সকালে কাকটি আবার ওদের উঠোনে এসে বসে।
টুনটুনি কাকটির কাছে গিয়ে বলে, বন্ধু ভালো আছো?
টুনটুনির কথা শুনে কাকটির মন ভরে যায়। সে কিছু বলে না।
টুনটুনি বলে, তোমার খিদে পেয়েছে?
কাকটি আবারও কা-কা করে ডেকে ওঠে।
টুনটুনি বুঝল যে কাকটির খিদে পেয়েছে। সে কাকটির জন্য দুধমাখা ভাত নিয়ে আসে।
কাকটি টুনটুনির কাছে এগিয়ে যায়।

রাতে টুনটুনির বাবা বাড়িতে ফেরেন।
টুনটুনি বাবার সাথে কাকের কথা বলে। গাছের কথাও বলে।
বাবা বলেন, কাক কি তোর বন্ধু?
টুনটুনি বলে, হ্যাঁ বাবা, তবে কাকটির বাবা-মা নেই?
বাবা বলেন, সে কি!

টুনটুনি সকাল হলে পড়তে বসে। মজার একটি ছড়া :
কাক ডাকে কাকা।
টুনটুনি তুই একা।
কাকের বন্ধু কে শুনি?
কে আবার? টুনটুনি!

৪.

পড়া ফেলে টুনটুনি বাগানে যায়। বাগানে গিয়ে দেখে, গাছে নানা রঙের ফুল ফুটেছে। ফুলের বনে নানা রঙের প্রজাপতি খেলা করছে। একটি প্রজাপতি তার হাতের উপরে এসে বসে। প্রজাপতিটি নড়ে না।

টুনটুনি বলে, তোমার কী হয়েছে? মন খারাপ? তুমি তো দেখতে খুব সুন্দর। তোমার বন্ধুরাও কী সুন্দর! তুমি বন্ধুদের সাথে ফুলের বনে খেলে বেড়াও। তোমার মন ভালো হয়ে যাবে। যারা একা থাকে তাদের মন ভালো থাকে না। তোমার তো অনেক সঙ্গী। আমার কিন্তু কোনো বন্ধু নেই। আমি একা। স্কুলের বন্ধুরা আছে। কিন্তু বাসায় তো আমি একা। তাই তো প্রতিদিন আমি কাকের সাথে কথা বলি, বাগানের গোলাপ গাছের সাথে কথা বলি। আজ আবার তুমি এসে জুটলে। তুমি কী আমার নতুন বন্ধু হবে?

৫.

বাগানের পাশে পাচিলের উপর তিনটি কাক বসে কা-কা করে ডাকছে। টুনটুনি বুঝে নেয়, কাকটি তার মা-বাবাকে ফিরে পেয়েছে।
টুনটুনি গোলাপ বাগানে গিয়ে তার প্রিয় গোলাপ গাছের গায়ে হাত দিতেই গাছটি কেমন নুইয়ে যায়। সে বুঝে নেয় গোলাপ গাছটি তার ছোঁয়ায় খুশি হয়েছে।প্রজাপতিটি হাতের উপর থেকে উড়ে গিয়ে একটু দূরে গোলাপের ডালে গিয়ে বসে। আবার উড়ে এসে টুনটুনির কাছে ঘুরঘুর করতে থাকে। টুনটুনি বুঝে নেয় প্রজাপতিটি তার বন্ধু হতে চায়। সে তার কচি কোমল হাতটা বাড়িয়ে দেয়। প্রজাপতিটি তার হাতের উপর এসে বসে।

টুনটুনি এখন বড় হয়েছে। একা একা ইশকুলে যায়।
কখনো কখনো তার ছেলেবেলার কথা মনে পড়ে।
টুনটুনির হাসি পায়।
মায়া হয়- কাক, গোলাপ গাছ ও প্রজাপতির জন্য!

 

মশিউর রহমান
শিশুসাহিত্যে ইউনিসেফ মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড এবং অগ্রণী ব্যাংক-শিশু একাডেমী শিশুসাহিত্য পুরস্কারপ্রাপ্ত।
প্রকাশক, সৃজনী

 

এই লেখকের অন্যান্য লেখা



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top